মেনু নির্বাচন করুন

পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ

ব্রহ্মপুত্র নদ ঃ
            তিব্বতের অন্তর্গত মানস সরোবর উদ্ভূত সাংপো নদ হিমালয় পর্বত ঘুরে আসামের পর্বতমালার মধ্যস্থিত ব্রহ্মকুন্ড বা লৌহিত্য সরোবর উৎপন্ন স্রোতে ধারার সাথে মিলে ব্রহ্মপুত্র নাম ধারণ করে বাংলাদেশ তথা ময়মনসিংহে প্রবেশ করে আমাদের গফরগাঁও এর পূর্ব পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। প্রথমত গফরগাঁও  থানার পূর্ব পাশের সর্বোত্তরে প্রবেশ করে। প্রথম কামারিয়ার চর  এবং  সম্পূর্ন চরআলগী ইউনিয়ন ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যে অবস্থিত। এবং পূর্ব পাশে গফরগাঁও নান্দাইল থানার সীমানা পৃথক করতঃ দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে হুসেনপুর ও পাকুন্দিয়া উপজেলার  সীমানা গফরগাঁও  হতে  পৃথক করে টাংগাব ইউনিয়নের সীমানা থেকে পূর্ব দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে ভৈরবের নিকট মেঘনার সাথে মিলিত হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র মোঘল আমলে প্রায় ১৫ কিলোমিটার প্রশস্থ ছিল। ১৮১৫ সালে বাহাদুরাবাদের পূর্ব দিকে দাউকুবার নিকট বালুচর পড়ে গেলে এর মুখ বন্ধ হয়ে যায় এবং বাইশ কোদালিয়া হতে জনাইর খাল দিয়ে স্রোত প্রবাহিত হতে লাগল। পরবর্তীতে জনাইর খাল যমুনা নদীতে পরিণত হয়।


            তিব্বতের অন্তর্গত মানস সরোবর উদ্ভূত সাংপো নদ হিমালয় পর্বত ঘুরে আসামের পর্বতমালার মধ্যস্থিত ব্রহ্মকুন্ড বা লৌহিত্য সরোবর উৎপন্ন স্রোতে ধারার সাথে মিলে ব্রহ্মপুত্র নাম ধারণ করে বাংলাদেশ তথা ময়মনসিংহে প্রবেশ করে আমাদের গফরগাঁও এর পূর্ব পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। প্রথমত গফরগাঁও  থানার পূর্ব পাশের সর্বোত্তরে প্রবেশ করে। প্রথম কামারিয়ার চর  এবং  সম্পূর্ন চরআলগী ইউনিয়ন ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যে অবস্থিত। এবং পূর্ব পাশে গফরগাঁও নান্দাইল থানার সীমানা পৃথক করতঃ দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে হুসেনপুর ও পাকুন্দিয়া উপজেলার  সীমানা গফরগাঁও  হতে  পৃথক করে টাংগাব ইউনিয়নের সীমানা থেকে পূর্ব দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে ভৈরবের নিকট মেঘনার সাথে মিলিত হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র মোঘল আমলে প্রায় ১৫ কিলোমিটার প্রশস্থ ছিল। ১৮১৫ সালে বাহাদুরাবাদের পূর্ব দিকে দাউকুবার নিকট বালুচর পড়ে গেলে এর মুখ বন্ধ হয়ে যায় এবং বাইশ কোদালিয়া হতে জনাইর খাল দিয়ে স্রোত প্রবাহিত হতে লাগল। পরবর্তীতে জনাইর খাল যমুনা নদীতে পরিণত হয়।


            তিব্বতের অন্তর্গত মানস সরোবর উদ্ভূত সাংপো নদ হিমালয় পর্বত ঘুরে আসামের পর্বতমালার মধ্যস্থিত ব্রহ্মকুন্ড বা লৌহিত্য সরোবর উৎপন্ন স্রোতে ধারার সাথে মিলে ব্রহ্মপুত্র নাম ধারণ করে বাংলাদেশ তথা ময়মনসিংহে প্রবেশ করে আমাদের গফরগাঁও এর পূর্ব পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। প্রথমত গফরগাঁও  থানার পূর্ব পাশের সর্বোত্তরে প্রবেশ করে। প্রথম কামারিয়ার চর  এবং  সম্পূর্ন চরআলগী ইউনিয়ন ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যে অবস্থিত। এবং পূর্ব পাশে গফরগাঁও নান্দাইল থানার সীমানা পৃথক করতঃ দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে হুসেনপুর ও পাকুন্দিয়া উপজেলার  সীমানা গফরগাঁও  হতে  পৃথক করে টাংগাব ইউনিয়নের সীমানা থেকে পূর্ব দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে ভৈরবের নিকট মেঘনার সাথে মিলিত হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র মোঘল আমলে প্রায় ১৫ কিলোমিটার প্রশস্থ ছিল। ১৮১৫ সালে বাহাদুরাবাদের পূর্ব দিকে দাউকুবার নিকট বালুচর পড়ে গেলে এর মুখ বন্ধ হয়ে যায় এবং বাইশ কোদালিয়া হতে জনাইর খাল দিয়ে স্রোত প্রবাহিত হতে লাগল। পরবর্তীতে জনাইর খাল যমুনা নদীতে পরিণত হয়।


Share with :

Facebook Twitter